এক মহান ব‍্যক্তিত‍্ব নরেন হাঁসদা

প্রতিদিন ভোরে সাঁওতালী ভাষায় প্রার্থনা সঙ্গীত দিয়ে পড়ুয়াদের দিন শুরু হয়। গুরুকুলের প্রতিটি ছাত্র-ছাত্রীকে সাঁওতালী ভাষার পাশাপাশি  বাংলা, অংক, ইংরাজী, বিজ্ঞান প্রভৃতি বিষয়েও সমদক্ষতা অর্জনের  শিক্ষা দেওয়া হয়। শিক্ষক-শিক্ষিকারা পাশ্ববর্তী গ্রাম থেকে আসেন এবং বিনা পারিশ্রমিকে পড়ুয়াদের শিক্ষা দান করেন। — লেখিকাঃ আয়না সরেন (কোলকাতা)।

“এই জঙ্গলমহল
পাহাড়-ডুংরী-নদী-নালা
শাল-মহুল-পলাশের ফুল
রূপে ঝলমল রে তুই..
দেখে লিবি চল রে…
এই জঙ্গলমহল”
-নরেন হাঁসদা (ঝুমুর শিল্পী)

               ‘রাঢ়’ কথাটি শুনলেই মনে আসে সেই ভৌগলিক বিবরণ, রুক্ষ-শুষ্ক ধূ-ধূ করা গ্রাম-প্রান্তর, পাহাড়- জঙ্গলের আকর্ষণ, যতদূর দৃষ্টি প্রসারিত  হয় চোখে পড়ে  শুধু লাল ধূলি-ধূসরিত প্রাঞ্জল। যেখানে  বনজ-সম্পদ আর কৃষিজাত ফসলই হল এই পশ্চিম রাঢ় অঞ্চলের জনপদবাসীর প্রাণ ধারণের প্রধান ধারক- বাহক। সবুজ-শস্য-শ্যামলার ছোঁয়া শুধু বর্ষার আগমনেই দেখা যায়, কিন্তু তাও সম্পূর্ণ  নির্ভর  করতে হয় প্রকৃতির খাম-খেয়ালীর ওপর। যেখানে কান পাতলে শোনা যায় ধামসা-মাদলের শব্দ, আর বাতাসে  ম-ম করে মহূয়া ফুলের গন্ধ। এখানকার প্রকৃতি প্রেমী জনজাতিকে নিয়ে গড়ে উঠেছে এক স্বতন্ত্র সাংস্কৃতিক  ঐতিহ্যবাহী অনার্যগোষ্ঠী।

               এহেন জঙ্গলমহল অঞ্চলে ঝুমুর শিল্পী নরেন হাঁসদার নাম, আকাশে-বাতাসে গুঞ্জিত হয়। পাহাড়-পাহাড়ে ধ্বনিত হয়। যিনি ২০১৪ সালে পুরুলিয়া জেলার আড়ষা থানার অন্তর্গত ‘ভালিডুংরি’ গ্রামের ‘সিধু-কানু মিশন’ এর প্রতিষ্ঠাতা  বা কুলগুরু।

               শাল পলাশ পিয়াল মহুয়া অর্জুন শিরিষ প্রভৃতি বৃক্ষ আর পাহাড়ে ঘেরা এক প্রান্তরের মধ্যে অবস্থিত ভালিডুংরি গ্রাম। যেখানে  এক-দেড় কিলোমিটারের আশে পাশে কোন গ্রামের অস্তিত্ব নেই। পুরুলিয়া স্টেশন থেকে ৩৪ কি.মি দূরে অবস্থিত ‘সিধু-কানু মিশন’।

               কোন রকম সরকারী সাহায্য  ছাড়ায়  দুঃস্থ  শিশুদের নিয়ে লড়াই-এ অবতীর্ণ  হন এই ঝুমুর শিল্পী মাননীয় নরেন হাঁসদা মহাশয়।

“আমাঃ জাতি লাগিৎ
আমাঃ ধরম লাগিৎ
যাহায় দ বায় ঞেলা
আমগেম ঞেলা”
– গুরু গমকে পন্ডিত রঘুনাথ মুরমু

               এই লাইন গুলো তাঁকে  শক্তি সঞ্চয়  করার সাহস দেয়। তিনি তাঁর মাতৃভাষাকে সম্মান জানিয়ে মাতৃভাষা শিক্ষার ওপর যথেষ্ট গুরুত্ব দেন। ছোট ছোট শিশুরা যাতে শিক্ষার আলো পায়, তাদের জীবন-প্রণালী যেন গদে-বাঁধা  নিয়মের মধ্যে অতিবাহিত না হয় সেটাই তাঁর মূল উদ্দেশ্য।

               তিনি মূলত একজন ঝুমুর শিল্পী। — ‘ছেলে-মেয়েদের  কম বয়সে বিয়ে না দেওয়া, সমাজকে সুরা পান থেকে বিরত থাকার অনুরোধ, সব শিশুরাই যেন যথার্থ শিক্ষা পায়, পরিবেশ রক্ষা করা, এছাড়া সামাজিক দায়বদ্ধতা’-প্রভৃতি সচেতনতা মূলক কথাগুলো তিনি তাঁর গানের মাধ্যমে প্রচার করেন।

বিভিন্ন মেলায়, অনুষ্ঠানে গান করে যা উপার্জন করেন তা দিয়ে  তিনি মিশনের  ব্যয়ভার বহন করেন। তিনি তাঁর বহু কষ্টের অর্জিত অর্থ  দিয়ে রুক্ষ-অঞ্চল টিকে প্রাণবন্ত করতে সক্ষম হয়েছেন। প্রতি নিয়ত এক-এক করে ছাত্র সংখ্যা বেড়ে আজ ১২০ জন থেকেও দিনদিন বেড়েই চলেছে।

               একনিষ্ঠ ও নিয়মানুবর্তীতার মধ্যে দিয়ে এগিয়ে চলেছে মিশনের শিক্ষা ব্যবস্থা। প্রতিদিন ভোরে সাঁওতালী ভাষায় প্রার্থনা সঙ্গীত দিয়ে পড়ুয়াদের দিন শুরু হয়। গুরুকুলের প্রতিটি ছাত্র-ছাত্রীকে সাঁওতালী ভাষার পাশাপাশি  বাংলা, অংক, ইংরাজী, বিজ্ঞান প্রভৃতি বিষয়েও সমদক্ষতা অর্জনের  শিক্ষা দেওয়া হয়। শিক্ষক-শিক্ষিকারা পাশ্ববর্তী গ্রাম থেকে আসেন এবং বিনা পারিশ্রমিকে পড়ুয়াদের শিক্ষা দান করেন। পড়াশোনার সাথে সাথে কর্মশিক্ষার বিষয়েও উৎসাহ দেওয়া হয় । যেমন-পড়াশোনার পর গাছ লাগানো, গাছের পরিচর্যা করা ও নিজ কাজ নিজে করার ক্ষমতা গড়ে তুলতে সাহায্য করা। নরেন হাঁসদা মহাশয় জলের চাহিদা পূরণে জন্যে কল বসান, মিশনের চারিদিকে  সাইন বোর্ডে সচেতনতার কথা লেখা হোর্ডিং লাগান, এছাড়া মিশনে প্রতি রবিবার  চলে গান, বাজনা ও আত্মরক্ষার মহড়া।

               শুধু তাই নয়, মিশন ছাড়াও কখনো কখনো প্বার্শবর্তী  গ্রাম গুলোর জন্য সমাজসেবামূলক কাজ যেমন- খাদ্য-শস্য  বিতরণ ও বিনা মূল্যে স্বাস্থ্য-শিবিরের ব্যবস্থা করে থাকেন।

পাথরের মধ্যেও যে ফুল  ফোটানো  যায়, এক অখ্যাত  গ্রামকে ভূগোলের মানচিত্রে যে, জায়গা করে দেওয়া যায়, তার এক অনন্য  নজির গড়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন তিনি।

               এই কর্মপ্রিয় পরোপকারী মহান মানুষটিকে অসংখ্য ধন্যবাদ না জানিয়ে পারা যায় না। তাঁর  জীবন-যাপনের সঙ্গে নিজেদের মেলাতে গেলে লজ্জায় মাথা হেঁট হয়ে  যায়। তাঁর নিষ্ঠাকে সম্মত জানিয়ে তাঁকে সেলাম জানাই।

                আসুন, একবার হলেও নিজেরা এই মানুষটির পাশে  যতটা সম্ভব  থাকার ভাবনাটিকে বাস্তবায়িত করি। তাঁর এই মহান প্রচেষ্টাতে সকলে যাতে আরও উৎসাহিত এবং অনুপ্রাণিত হয় সেই ভাবনটা আমাদের নৈতিক  দায়িত্ববোধের  মধ্যেই পড়ে।

  • 737
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  

One Thought to “এক মহান ব‍্যক্তিত‍্ব নরেন হাঁসদা”

  1. Fresh soren

    Adi ramoj aventara

Leave a Comment